Breaking News

অবশেষে প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৫০০ আনছে রাশিয়া (ভিডিও)

ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থায় আরও একধাপ এগিয়ে গেল ভ্লাদিমির পুতিনের রাশিয়া। এবার নিজেদের মিসাইল-ভান্ডারে অত্যধুনিক এস-৫০০ মিসাইল যোগ করার ঘোষণা দিয়েছে মস্কো। মহাকাশ প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার প্রথম প্রজন্মের অস্ত্র হলো এস-৫০০ মিসাইল।

২৫ মে এক টেলিভিশন ভাষণে রাশিয়ার রাষ্ট্রপতি ভ্লাদিমির পুতিন জানান, ‘রাশিয়া বহুল প্রতীক্ষিত এস -৫০০ বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার পরীক্ষা শেষ করতে চলেছে এবং পরবর্তীতে এটিকে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত করা হবে।

রাশিয়ার উপ-প্রতিরক্ষামন্ত্রী আলেক্সি ক্রিভ্রুচকো জানান স্থানীয় সংবাদমাধ্যমকে জানান, ভবিষ্যতে মহাকাশ অস্ত্র এবং পৃথিবীর কাছের কক্ষপথে থাকা উপগ্রহকেও ধ্বংস করতে পারবে এটি। এস-৫০০ প্রযুক্তির এই মিসাইলের নাম দেওয়া হয়েছে প্রমিথিউস। শুধু কক্ষপথে থাকা কোনও উপগ্রহই নয়, অত্যাধুনিক হাইপারসনিক মিসাইল ধ্বংস করতেও সক্ষম এই এস ৫০০ প্রযুক্তির প্রমিথিউস।

এস-৫০০ ক্ষেপণাস্ত্রটি ৩৭০ মাইলের বেশি দূরত্বে লক্ষ্যবস্তুকে আঘাতে সক্ষম। সেকেন্ডে ৭ কিলোমিটার গতিবেগে আঘাত হানতে পারে এই ক্ষেপণাস্ত্র। যুক্তরাষ্ট্রের অত্যাধুনিক স্টেলথ যুদ্ধবিমান এফ-৩৫ এবং এফ-২২ র‌্যাফটরও এই ক্ষেপনাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থার রাডারে ধরা পরে যাবে।

রাশিয়ার বার্তা সংস্থা তাস জানায়, একসঙ্গে ১০টি ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রকে নিশানা করতে এবং তারমধ্যে ৭টিকে এক আঘাতেই ধ্বংস করতে সক্ষম এই এস-৫০০ মিসাইল। ২০১৪ সালে এই ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নিয়ে কাজ শুরু করেছিল রাশিয়া।২০১৯-এর শেষে এক বার্তায় প্রেসিডেন্ট পুতিন বলেছিলেন, বিশ্বে হাইপারসোনিক অস্ত্রে সবচেয়ে এগিয়ে রাশিয়াই।

রাশিয়ার সরকারের সূত্রে স্থানীয় গণমাধ্যমগুলো জানায়, ভবিষ্যতে এস-৫০০ মিসাইল তারা অন্য কাউকে বিক্রি করবে না। এটি শুধুমাত্র রাশিয়ান সেনাবাহিনীই ব্যবহার করতে পারবে।

Check Also

সুন্দরী নারীদের ব্যবহার করে ইসরায়েলের নয়া কৌশল

তরুণী, আবেদনময়ী, যুদ্ধে যেতে প্রস্তুত। তারা সবাই ইসরায়েল ডিফেন্স ফোর্সেসের (আইডিএফ) সদস্য। কিন্তু তাদের কাজ …